খাদ্য ও স্বাস্থ্যকথাখাদ্য টিপসপুষ্টি পরামর্শস্বাস্থ্য টিপস

শরীরের ক্লান্তি দূর করে যেসব খাবার

শরীরের ক্লান্তি দূর করে যেসব খাবার

ক্লান্তি কাজের মনোযোগের অভাব ঘটায়। কাজের গতিকে রোধ করে। ক্লান্তিভাব শরীরে নিয়মিত দেখা দিলে শরীরের উপর একটা নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। এতে করে আমাদের দেহ ও মন অবসাদ হয়ে যায়।

আমাদের শরীর নানা কারণে ক্লান্ত হয়ে যায়। যেমন- মানসিক চাপ, শারীরিক বিভিন্ন পরিশ্রম, কাজের চাপসহ নানা ধরনের অসুস্থতার কারণে শরীর ক্লান্ত হতে পারে। শরীরের ক্লান্তি দূর করার জন্য কিছু খাবার খাওয়া যেতে পারে। যেমন-

এসব খাবার আমাদের শরীরে জ্বালানির মতো কাজ করে। এগুলো খেলে কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি পায়।

যেসব ফল ও সবজি ওজন বাড়ায়

১। ডিমঃ ডিম একটি পরিপূর্ণ আমিষ। ডিমে প্রোটিন ও প্রচুর পরিমাণে অত্যাবশকীয় অ্যামিনো এসিড আছে। একটি ডিমে প্রায় ৭০ ক্যালরি ও ৬ গ্রাম প্রোটিন থাকে। এটি শরীরে খুব ধীরে ধীরে শক্তি সরবরাহ করে থাকে। ডিমের প্রতি ক্যালরিতে অন্যান্য খাবারের থেকে বেশি পুষ্টি থাকে।

ডিমে ভিটামিন ডি, ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স থাকে। এগুলো শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। ডিম আমাদের হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে। আবার ডিম সিদ্ধ বা ভাজা যেকোন ভাবেই খাওয়া যায়। তাতেই ক্লান্তি দূর হয়ে যায়।

শরীরের ব্যথা দূর করে যেসব খাবার

২। ডার্ক চকোলেটঃ ডার্ক চকলেটে চিনির পরিমাণ খুব কম থাকে। এই চকলেটে কোকোয়া থাকে যাতে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। এগুলোতে রয়েছে থিব্রোমিন ও ট্রিপ্টোফেন। চকলেট দ্রুত শক্তি বাড়ায় ও মেজাজ ভালো করতে সাহায্য করে। ডার্ক চকলেট শরীর ও মস্তিষ্ক সক্রিয় রাখতে দ্রুত অক্সিজেন সরবরাহ করতে সাহায্য করে, রক্তচাপ কমায়, রক্ত চলাচল বাড়ায় এবং কোষের সুরক্ষায় সাহায্য করে। ডার্ক চকলেট মস্তিষ্কে ভালো অনুভূতির হরমোন তৈরীর মাধ্যমে মন শিথিল করে।

কি কি খাবার ত্বক উজ্জ্বল করে ?

৩। মৌসুমি ফলঃ আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় টাটকা ও মৌসুমি ফল রাখা উচিত। এসব ফল আমাদের শরীরে পুষ্টির জোগাড় দিয়ে থাকে। এগুলো খেলে ক্লান্তি দূর হয়ে যায়।

গরমে শরীর ঠান্ডা করা সবজি

৪। কলাঃ কলাতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়। পটাশিয়াম শর্করা ভেঙ্গে শক্তি জোগান দিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এছাড়া ও কলাতে ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, ফাইবার, কার্বোহাইড্রেটসহ ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড ও পাওয়া যায়। তাই প্রতিদিন একটা করে কলা খাওয়ার অভ্যাস করা উচিত। তাহলে শরীরের ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে।

প্রতিদিন কলা খেতে হবে কেন?

৫। বাদামঃ ক্লান্তির সময়ে বাদাম খুব দ্রুত শক্তি জুগিয়ে থাকে। বাদাম শরীরে পুষ্টি জোগাতে সাহায্য করে। বাদামে প্রোটিন, আঁশ, মিনারেলস, ভালো চর্বি পাওয়া যায়। এক মুঠো কাজুবাদাম শরীরে ২০% ম্যাগনেশিয়ামের ঘাটতি পূরণ করে থাকে। বাদাম শক্তি তৈরীতে ও কোষ গঠনে সাহায্য করে।

যেসব খাবার ফ্রিজে রাখা উচিত নয়

৬। পানিঃ ক্লান্ত লাগলে বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। পানি শরীরকে কর্মক্ষম রাখে। পানি শরীরের তাপমাত্রা ঠিক রাখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে খাদ্য উপাদান পৌছে দেয়। শরীরে পানি শূণ্যতা দেখা দিলে ভারসাম্যহীনতা ও দূর্বলতা দেখা দেয়। তাই শরীর সুস্থ ও ক্লান্তিমুক্ত রাখতে বিশুদ্ধ পানির কোণ বিকল্প নেই।

গরমে শরীর ঠান্ডা করা খাবার

৭। বিশুদ্ধ পানিঃ ক্লান্ত লাগলে বিশুদ্ধ পানি পান করুন। পানি শরীরকে কর্মক্ষম রাখে। পানি শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে খাদ্য উপাদান পরিবহন করে। শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দিলে ভারসাম্যহীনতা ও দুর্বলতা দেখা দেয়। তাই সুস্থতার জন্য পানি একটি অত্যাবশ্যকীয় উপাদান।

টক দইয়ের সাথে খাওয়া যাবে না যেসব খাবার

৮। দইঃ দইতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও কার্বোহাইড্রেট থাকে। এগুলো এনার্জির ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন এক কাপ করে দই খেলে শরীরে কোণ ক্লান্তি আসবে না।

রাতে কোন খাবার খেলে ওজন বাড়বে না?

৯। মধুঃ মধুতে গ্লুকোজ ও ফ্রুক্টোজ পাওয়া যায় প্রচুর পরিমাণে। এগুলো শরীরে শক্তি জোগাতে সাহায্য করে ও ক্লান্তি দূর হয়। মধুতে থাকা অন্যান্য উপাদান রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

শিশুদের সংক্রমণ রোধ করতে যেসব খাবার কাজ করে

১০। ওটমিলঃ ওটমিলে কার্বোহাইড্রেট ছাড়াও ফসফরাস, ভিটামিন বি-১, ম্যাগনেশিয়াম থাকে প্রচুর পরিমাণে। এগুলো শরীরে শক্তি জুগিয়ে থাকে। তাই প্রতিদিনের নাস্তায় ওটমিল রাখলে এনার্জি পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ যেসব ভিটামিনের অভাবে শরীর ক্লান্ত লাগে

যেকোন ব্যথা সারাতে যেসব খাবার খেতে পারেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.