মেকআপলাইফস্টাইল

গরমকালে ড্রাই স্কিনের মেকআপ করার পদ্ধতি

গরমকালে ড্রাই স্কিনের মেকআপ করার পদ্ধতি

আমাদের স্কিনের ধরন বুঝে মেকআপ করা উচিত। ওয়েলি স্কিন বা নরমাল স্কিনে মেকআপ করতে কোন ঝামেলাই নেই। কিন্তু আপনার স্কিন যদি হয় ড্রাই তাহলে তো মেকআপ করতে একটু কষ্টই হবে।

ড্রাই স্কিনে মেকআপ করলে ফেটে যায় আবার মাঝে মাঝে মেকআপ বসেই না। তাই ড্রাই স্কিনে মেকআপ করতে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় কিন্তু তাই বলে কি মেকআপ করা বাদ থাকবে। মেকআপ তো করতেই হবে।

ড্রাই স্কিনের এই মেকআপের সমস্যা সমাধান করা হবে আজ। ড্রাই স্কিনে কিভাবে মেকআপ করলে মুখ শুকনা শুকনা লাগবেও না আবার মেকআপ ফেটেও যাবে না। খুব সুন্দর একটা গ্লোয়িং মেকআপ কিভাবে করা যায় তাই নিয়েই আজ আলোচনা করা হবে।

আরো পড়ুনঃ চুলকে স্বাস্থ্যবান রাখতে ভিটামিন

১। মুখ পরিষ্কার

মুখে খুব সুন্দর গ্লোয়িং মেকআপ করতে হলে প্রথমেই মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। মুখ পরিষ্কার না থাকলে যত সুন্দরই মেকআপ করা যায় কিনা তা দেখতে খারাপই লাগে। মুখের মেকআপ মুখ পরিষ্কার না থাকলে ঠিকমতো বসে না। আবার ত্বক ও নষ্ট হয়ে যায়।

তাই মেকআপ করার আগে মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। প্রতিদিন যেই ফেশওয়াস ব্যবহার করেন সেটাই ব্যবহার করে মুখ পরিষ্কার করে নিতে হবে। মুখে অতিরিক্ত ঘাম হলে একটু বরফ ঘসে নিতে পারেন। এতে মেকআপ অনেক সময় মুখে থাকে।

আরো পড়ুনঃ চুল ঘন ও ঝলমলে করার উপায়

২। ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার

মুখ পরিষ্কার করার পরের ধাপ হলো মুখকে ময়েশ্চারাইজড করা। যাদের স্কিন ড্রাই তাদের স্কিন তো সবসময়ই ড্রাই থাকে তারপর মুখ ধুলে আরো ড্রাই হয়ে যায়। মেকআপ করতে গেলে তখন মেকআপ ভালোভাবে বসে না। তারপর যতটুকুই বসবে মুখ আরো বেশি ড্রাই হয়ে যাবে।

তাই ড্রাই স্কিনদের মুখে মেকআপ করার আগে একটা ভালোমানের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করে নিতে হবে। শীতে আমরা যেসব ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করি গরমে সেগুলো ব্যবহার করা যাবে না। তার থেকে হালকা ধরনের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ পানি পান করার সঠিক নিয়ম

৩। প্রাইমার ব্যবহার

আমরা যখন মেকআপ করি তখন মেকআপ অনেক ভালো থাকে কিন্তু কিছু সময় পর মেকআপ হঠাত করেই উঠে যেতে থাকে। মেকআপ করার পর অনেকসময় যাতে মুখে লেগে থাকে তাই এই সময় প্রাইমার ব্যবহার করা উচিত।

দেওয়ালে যেমন রং করার আগে প্রাইমার লাগানো হয় যাতে রং অনেকদিন পর্যন্ত ঠিকে থাকে ঠিক তেমনি মেকআপ করার আগে প্রাইমার ব্যবহার করা হয় যাতে মেকআপ অনেকসময় লেগে থাকে।

এছাড়াও মেকআপের যে ক্ষতিকর ক্যামিকেল তা মুখে প্রবেশ করতে দেয় না প্রাইমার। মুখকে স্বাস্থ্যবান রাখতে সাহায্য করে প্রাইমার। ফাউন্ডেশন সহ মুখে আরো যা যা লাগানো হবে সেসবের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে মুখকে রক্ষা করে প্রাইমার।

মুখকে মেকআপের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা করতে মুখে প্রাইমার লাগিয়ে নিতে হবে। প্রাইমার না থাকলে অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে নিতে হবে। অ্যালোভেরা জেল মুখকে হাইড্রেটেড করে।

অ্যালোভেরা জেলও প্রাইমারের মতোই কাজ করে। স্কিনকে রক্ষা করে। প্রাণবন্ত করে। মুখ শুকিয়ে যায় না। মুখের মেকআপ ধরে রাখতে সাহায্য করে।

আরো দেখুনঃ সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য যে কাজগুলো করা দরকার

৪। ফাউন্ডেশন

প্রাইমার লাগানো শেষ হয়ে গেলেই মুখ মেকআপের জন্য প্রস্তুত। তখন মুখে ফাউন্ডেশন লাগিয়ে নিতে পারেন। মেকআপের বেস হচ্ছে ফাউন্ডেশন।

যেকোন একটা ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করে একটু ভালো মানের ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে হবে। যাতে মুখ শুকিয়ে না যায়।

আর যদি বেশি ভারী মেকআপ না করতে চান তাহলে বিবি বা সিসি ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। এই ক্রিমগুলোও ফাউন্ডেশনের মতো কাজ করে।

ড্রাই স্কিন হলে স্টিক ফাউন্ডেশন ব্যবহার করা যাবে না। স্টিক ফাউন্ডেশন ব্যবহার করলে মুখ আরো শুকিয়ে আসবে। মেকআপ ভালোভাবে বসবে না।

তাই লিকুইড ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে হবে। হালকা ফাউন্ডেশন নিয়ে সারা মুখে ভালো করে ব্লেন্ড করে দিতে হবে।

আরো পড়ুনঃ খুশকি দূর করার উপায়

ড্রাই স্কিনের মেকআপ

৫। কনসিলার ব্যবহার

ফাউন্ডেশন লাগানোর পরেও যাদের মুখে ব্ল্যাক স্পট ও চোখের নিচে কালি থাকে তাদের কনসিলার ব্যবহার করতে হয়। মুখের যে যে অংশে দাগ থাকে সে সে অংশে আলতো করে কনসিলার লাগিয়ে ব্লেন্ড করে নিতে হবে।

আবার ফাউন্ডেশন লাগানোর আগেও কনসিলার লাগানো যেতে পারে। মুখের সব দাগ ঢেকে ফাউন্ডেশন লাগানো যেতে পারে।

যত সুন্দর করেই মেকআপ করুন না কেন যদি মুখের দাগ ছোপ লুকাতে না পারেন তাহলে পারফেক্ট লুক আসে না। মেকআপের পারফেক্ট লুক আনতে কনসিলার ব্যবহার করা উচিত।

আরো পড়ুনঃ
ত্বকের যত্নে অলিভ অয়েল এর উপকারিতা বা অপকারিতা।

৬। ঠোটের মেকআপ

মুখ তো হয়েই গেল এবার ঠোট। ঠোটে লিপস্টিক লাগানোর আগে ভালো করে লিপবাম লাগিয়ে নিতে হবে। যাদের ঠোট খুব বেশি শুষ্ক তারা তো বেশি করে লিপবাম লাগিয়ে নিবেন। তাহলে ঠোট আর শুকাবে না।

লিপবাম লাগিয়ে লিপস্টিক লাগাতে হবে। ঠোটে যদি ম্যাট লিপস্টিক লাগান, তাহলে আগে থেকেই খুব ভালো করে লিপিস্টিক লাগাতে হবে। ঠোট নরম হয়ে গেলে একটা ভালো লিপিস্টিক লাগিয়ে নিতে হবে। সুন্দর সাজের সাথে ফাটা ঠোট কখনোই ভালো লাগবে না।

আরো পড়ুনঃ ২০২১ সালে ত্বকের পরিচর্যার জন্যে যেসব উপকরণগুলি আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠবে

৭। চোখ সাজানো

মুখ সাজানো ঠোট সাজানো হয়ে গেলে চোখ সাজাতে হবে। অনেকেরই চোখের নিচে কালি পড়তে দেখা যায় তখন চোখ সাজানোর আগে আই প্রাইমার লাগিয়ে নিতে হবে। যাদের চোখে খুব বেশি কালি নেই তাদের আই প্রাইমার লাগাতে হবে না।

তারপর আই ব্রো দিয়ে ব্রো আকিয়ে নিতে হবে। কাজল দিয়ে চোখের নিচে আকাতে হবে। তারপর আই লাইনার ব্যবহার করতে হবে। আইশ্যাডো, মাস্কারা ব্যবহার করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ মধুতে হোক রুপচর্চা

৮। ফিনিশিং টাচ

বেসিক মেকআপ শেষ হয়ে গেলে হাইলাইটার ব্যবহার করতে হবে। কোন পার্টি বা ভারী অনুষ্ঠানে গেলে হাইলাইটার ব্যবহার করতে হবে।

হালকা মেকআপ করতে চাইলে হাইলাইটার ব্যবহার করতে হয় না। ব্রাশে হালকা করে হাইলাইটার নিয়ে একটু একটু গালে কপালে লাগিয়ে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এটা পুরো মুখে মাখানো যাবে না। মুখের কিছু অংশ হাইলাইট করতে এটা ব্যবহার করা হয়।

মেকআপকে দীর্ঘস্থায়ী করতে সবশেষে সেটিং স্প্রে ব্যবহার করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ গাজরে হোক রুপচর্চা

মনে রাখবেনঃ

  • মেকআপ শুধু করলেই হবে না। কোথাও থেকে এসে মেকআপ ভালোভাবে উঠিয়ে নিতে হবে। ক্লিনজার ব্যবহার করতে হবে।
  • বাড়িতে এসে মেকআপ ভালো করে না পরিষ্কার করে ঘুমানো যাবে না। এতে ত্বকের অনেক ক্ষতি হয়।
  • চোখের মেকআপ ও মুখের মেকআপের মতোই ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে।
  • যেহেতু মেকআপ আমাদের মুখে ব্যবহার করি তাই সব মেকআপই ভালো মানের ব্যবহার করতে হবে। বিশেষ করে চোখের মেকআপ।
  • খুব বেশি হাইলাইটার ব্যবহার করা যাবে না। এতে মুখ বেশি চকচক করে। তাহলে ঘাড়, হাত, গলার সাথে মুখের সামঞ্জস্য থাকবে না।
  • ড্রাই স্কিনে একটু সিরাম লাগিয়ে নেওয়া যেতে পারে। আরো পড়ুনঃ চুল পড়া রোধের উপায়

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.