অন্যান্যরোগতত্ত্ব

জন্ডিসে আক্রান্ত হলে খাদ্যব্যবস্থা জেনে নিতে পারেন

জন্ডিসের চিকিৎসা

জন্ডিস হলে খাবার নিয়ম

লিভার ও পিত্তনালীর স্বাভাবিক কার্য ব্যাহত হলে যে সকল লক্ষণ প্রকাশ পায়, জন্ডিস তাদের মধ্যে অন্যতম, আর এই জন্ডিস হলে খাবার নিয়ম মানতে হয় বিশেষ ভাবে। পিত্তরঞ্জক পদার্থগুলি পিত্ত দ্বারা অন্ত্রে প্রবেশ করতে না পারলে রক্তে প্রবেশ করতে থাকে এবং প্রচুর পরিমাণে পিত্তরজক পদার্থ রক্ত দ্বারা বাহিত হয়ে সমস্ত দেহে ছড়িয়ে পড়লে দেহের রঙ হলদে দেখায়। সাধারণত রক্তে বিলিরুবিনের পরিমাণ থাকে প্রতি ১০০ মিলিমিটার রক্তে ০.২ মিলিগ্রাম থেকে ০.৮ মিলিগ্রাম। এই পরিমাণ যখন বেশী বেড়ে প্রতি ১০০ মিলিমিটারে ১.৮ গ্রামের বেশী হয় তখন শরীরের বিশেষ করে চোখের রঙ এর পরিবর্তন নজরে পড়ে। জন্ডিস হলে সাধারণত জ্বর হতে দেখা যায়। এর সাথে লিভারে ব্যথা অনুভূত হয়। এ সময় রক্ত পরীক্ষা করলে জন্ডিস শনাক্ত করা যায়।

আরো পড়ুনঃ ডায়রিয়া হলে হতাশ না হয়ে চিকিৎসা জানুন

আরো পড়ুনঃ পানি পান করার সঠিক নিয়ম

সাধারণত তিনটি কারণে জন্ডিস হতে পারে।

১। রক্তের লোহিত কণিকা অধিক হারে ভাঙতে থাকলে অধিক পরিমাণে বিলিরুবিন নির্গত হতে থাকে। যকৃত সুস্থ থাকলে এর অনেকখানিই পিত্তদ্বারা অন্ত্রে নির্গত হয়। কিন্তু যকৃতের কাজে বিঘ্ন ঘটলে অথবা অধিক হারে হিমোগ্লোবিন ভাঙ্গতে থাকলে যকৃত বিলিরুবিনকে পিত্তে নিঃসৃত করতে অসমর্থ হয়। তখন রক্তে এই পিত্তরঞ্জক পদার্থগুলি জমা হয়ে যায়।

২। পিত্তনালীতে পাথর বা অন্যকোন রকম অস্বাভাবিকতা হেতু নালীর পথ বন্ধ হয়ে গেলে পিত্তের স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হয়। এতে রক্তে বিলিরুবিন জমা হয়। এই ধরনের জন্ডিস হলে অপারেশন করে বাধার কারণ অপসারণ করলে রোগী সুস্থ হয়ে যায়। .

৩। কোন সংক্রামক রোগ অথবা অন্য কোন বিষাক্ত পদার্থ দ্বারা যকৃত ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে থাকলে যকৃতের কোষগুলি বিলিরুবিন গ্রহণ করতে ও তার বিলি ব্যবস্থা করতে অসমর্থ হয়। তখন জন্ডিসের লক্ষণগুলি প্রকাশ পায়।

খাদ্যব্যবস্থাঃ জন্ডিস হলে চর্বিজাতীয় খাদ্যদ্রব্য পরিপাকে বিঘ্ন ঘটে এজন্য ঐ সমস্ত খাদ্যদ্রব্য একবারে নিষিদ্ধ করতে হয়। এ সময় প্রচুর ক্যালরির চাহিদা পূরণ করতে প্রধানত শর্করাজাতীয় খাদ্যের উপর নির্ভর করতে হয়। এসময় দেহের দেহের স্বাভাবিক পুষ্টির জন্য সুষম খাদ্যব্যবস্থা করা একান্তই জরুরী এবং খাদ্যবস্তু গুলি যেন সহজপাচ্য হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। অতিরিক্ত মশলাযুক্ত খাদ্য, ভাজা খাদ্য ও অন্যান্য গুরুপাক খাদ্য পরিহার করে চলতে হবে। প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করার জন্য আহার্যে উচ্চমানের প্রোটিন খাদ্য দিতে হয়। যকৃতের বিশ্রামের জন্য যথাসম্ভব দেহের বিশ্রামের ব্যবস্থা করা দরকার।

আরো পড়ুন কিডনির আদ্যপান্ত কিডনি এবং পাকস্থলী সুস্থ রাখার উপায়

পেটের গ্যসের অসস্তিথেকে মুক্তি পেতে পড়ুন গ্যাস্ট্রিক বা গ্যাসট্রাইটিস রোগের উপশম

রোগের তীব্রতা বাড়লে রোগীকে সম্পূর্ণ বিছানায় শুইয়ে রাখতে হবে। যদি ক্রমাগত বমি হতে থাকে এবং মুখ দিয়ে কোন খাদ্য গ্রহণ করার ক্ষমতা না থাকে তবে ৫% গ্লুকোজ দ্রবণ শিরার মধ্যে সরাসরি প্রবেশ করিয়ে দেওয়া যেতে পারে। যদি বমি না থাকে, তবে তরল ও নরম খাদ্য দেওয়া চলবে। ফলের রস, শরবত, মধু, জেলী, জাউভাত এগুলি যত শীঘ্রই সম্ভব দেওয়া উচিত। এসময় রোগীকে প্রচুর ভিটামিন বি সমূহ ও ভিটামিন কে দেওয়া দরকার।

জন্ডিস রোগে হ্রাসকৃত স্নেহপদার্থের খাদ্য নমুনাঃ

দৈনিক বরাদ্দ শক্তি -( ২০০০-২৩০০ ) কিলোক্যালরি

শর্করা – ৪০০ গ্রাম

প্রোটিন- ( ৭০-৮০ ) গ্রাম

স্নেহ- ( ২০-২৫ ) গ্রাম

খাদ্যবস্তুপরিমাণ ( গ্রাম )প্রোটিন ( গ্রাম ) ক্যালরি ( গ্রাম ) স্নেহ ( গ্রাম )
চাল২৫০১৭৮৭০
মাখন তোলা দুধ৭৫০২২২২০০.৭
মুরগির বাচ্চা বা যেকোন তেলহীন মাছ১০০২৬৯০০০.৬
আলু১০০৯০০.১
শাকসবজি১০০৩০০.১
ফল১০০৪০০.৩
চিনি, গুড় বা মধু রান্নায় ব্যবহৃত২০০৮০০
সয়াবিন তেল২০১৮০২০.০
মোট খাদ্যবস্তু৭৩২৩৩০২২.৮
জন্ডিস হলে খাবার নিয়ম ও তালিকা

বাদাম লাভার হলে জানুন বাদাম খাবার উপকারিতা

প্রতিদিন খেজুর খেতে চাইলে জানুন সকালে খালি পেটে খেজুর খাওয়ার ১৩টি উপকারিতা

১। জন্ডিস হলে উপরোক্ত খাদ্যবস্তু আধা তরলীকৃত অবস্থায় খেতে হয়।

২। এর সাথে প্রচুর পানি বিশেষ করে ডাবের পানি খাওয়ানো ভালো।

৩। খাদ্যের মধ্যে আশ, বাতাবি লেবু বা অন্যান্য ফলের রস খাওয়ানো ভালো।

৪। সম্ভব হলে চিনি, গুড় বা মধুর স্থলে গ্লুকোজ ব্যবহার করা ভালো।

জন্ডিস রোগীর মেনুঃ

ভোর ৬ টায়ঃ ফলের রস – ১ গ্লাস

সকালের নাস্তায়ঃ

বরাদ্দ চালের ১/৪ অংশ জাউভাতের মতো রান্না

গুড়- ১০০ গ্রাম

মাখন তোলা দুধ – ১ পোয়া

বেলা ১১ টায়ঃ ফলের রস ( আখের রস বা আমের রস )

দুপুর ১ টায়ঃ

বরাদ্দ জাউভাতের ১/২ অংশ

শোলমাছ আলুর ঝোল

শাক

বিকালেঃ কলা, মাখন তোলা দুধ – ১ গ্লাস

রাতেঃ

বরাদ্দকৃত জাউভাতের ১/৪ অংশ

মুরগির বাচ্চা সিদ্ধ

সবজি সিদ্ধ

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.