ডায়াবেটিসরোগতত্ত্ব

ডায়াবেটিসের খাদ্য জেনে নিন

ডায়াবেটিসের খাদ্য

ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে সকালবেলা শর্করার আধিক্য থাকে বলে মোট বরাদ্দ শর্করাকে ৫টি ভাগে ভাগ করে সকালে ১/৫, দুপুরে ২/৫ ও রাতে ২/৫ গ্রহণ করলে কোন সময়েই রক্তে অধিক পরিমাণ গ্লুকোজ প্রবেশ করবেনা। ডায়াবেটিসের চিকিৎসা হিসাবে যাদের নিয়মিত ইনসুলিন ইঞ্জেকশন দেওয়া হয় তাদের বেশি রাতে দুধ ও বিস্কুট জাতীয় খাদ্য দেওয়া উচিত। নতুবা গভীর রাতে বা ভোরবেলা রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা অত্যাধিক কমার দরুন অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন।

ডায়াবেটিসের খাদ্য

পথ্যাদির ব্যপারে সঠিক ধারণা লাভের জন্য ডায়াবেটিস রোগীদের নিম্নলিখিত খাদ্যবস্তু সম্বন্ধে অবহিত হতে হবে।

১। নিষিদ্ধ খাবার

২। অনিয়ন্ত্রিত খাবার

৩। আংশিক খাবার

আরো পড়ুনঃ ডায়াবেটিসের কারণ, লক্ষণ ও পরীক্ষা

১। নিষিদ্ধ খাবারঃ যে খাবার গুলিতে প্রচুর পরিমাণে শর্করা ও শ্বেতসার জাতীয় উপাদান রয়েছে, বহুমূত্র রোগীদের সেগুলো খাওয়া উচিত নয়। এই জন্য বেশি শর্করাজাতীয় খাদ্য ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। চিনি, মধু, গুড়, শরবত, ক্ষীর, পিঠা, জেলী, জ্যাম, মিষ্টি, কেক, পেস্ট্রি, কোকা-কোলা, ভিটাকোলা ইত্যাদি ডায়াবেটিস বা বহুমূত্র রোগীদের জন্য নিষিদ্ধ খাবার।

২। অনিয়ন্ত্রিত খাবারঃ যে সকল খাদ্য ইচ্ছেমত খাওয়া চলে হিসাব করতে হয় না সেগুলিকে অনিয়ন্ত্রিত খাবার বলে। এই সকল খাদ্যবস্তুতে শর্করা বা শ্বেতসার একেবারেই থাকে না অথবা এতো অল্প থাকে যা গণ্য না করলেও চলে। এই খাদ্যগুলোর শক্তিমূল্য খুবই কম। চা, কফি, মশলা, স্যাকারিন, লেবুর রস, ট্মেটোর রস, সিরকা, মরিচ ও শাকসবজির মধ্যে লালশাক, পালনশাক, লেটুস, শশা, করলা, বাধাকপি, ফুলকপি, ওলকপি, লাউ, উচ্ছে, সজনে, চিচিংগা, চালকুমড়া, পটল, ঝিঙ্গগে ইত্যাদি এই ধরনের খাদ্য ইচ্ছেমতো খাওয়া চলতে পারে।

৩। আংশিক খাবারঃ এই ধরনের খাবার গুলিতে শুধু যে শর্করা ও শ্বেতসার যথেষ্ট পরিমাণে থাকে তাই নয় এগুলো প্রোটিন ও স্নেহপর্দাথের ও প্রধান উৎস। এই সব খাদ্যের শক্তিমূল্য বেশি। আমাদের দৈনন্দিন আহার্য এই সব খাদ্য দিয়েই প্রস্তুত হয়। এই খাদ্যগুলি গ্রহণের ব্যাপারে ডায়াবেটিস রোগীকে যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। চাল, গম, ডাল, ডিম, মাছ, মাংস, দুধ ইত্যাদি আংশিক খাদ্য। রোগীর বয়স, ওজন ও পরিশ্রম ভেদে যতখানি ক্যালরি, শর্করা ও চর্বি গ্রহণ করতে হবে, সেগুলো হিসাব করে সেই অনুসারে উপরোক্ত উপরোক্ত খাদ্যগুলির পরিমাণ নির্ধারণ করতে হবে।

প্রত্যেক দিন ওজন করা অসুবিধাজনক এবং এর প্রয়োজন ও নেই। প্রথম দিন ওজন করে পরে চোখের আন্দাজ মতো গ্রহণ করলেই চলবে এবং মাসে একবার কিংবা দুইবার ওজন করে পরিমাণ ঠিক আছে কিনা যাচাই করে নিতে হবে। ডায়াবেটিস রোগীর জন্য আলাদা খাদ্যদ্রব্য কেনা বা রান্না করার প্রয়োজন নেই। পরিবারের অন্যান্য সকলের জন্য যে খাদ্য প্রস্তুত করা হবে তা থেকে উপযুক্ত খাদ্য পরিমাণ মতো বেছে নিয়ে খাওয়া চলতে পারে। কারণ ডায়াবেটিস রোগীর জন্য পথ্যাদির ব্যবস্থা আজীবন চালিয়ে যেতে হবে। সেজন্য সহজতর ও সম্ভবপর পন্থাই এরকম নিয়ন্ত্রিত খাদ্য ব্যবস্থাকে স্থায়ী ও নিশ্চিত করে।

আরো দেখুনঃ বাদাম খাবার উপকারিতা

খাদ্য পরিকল্পনা ও বিনিময় পদ্ধতিঃ ডায়াবেটিস রোগীদের খাদ্য পরিকল্পনার সুবিধার জন্য নানারকম পুস্তিকা প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে ১৯৫০ সালে আমেরিকান ডায়াবেটিক এসোসিয়েশন কতৃক প্রকাশিত পুস্তকটি বহুল প্রচারিত। বাংলাদেশের ডায়াবেটিক সমিতি কর্তৃক ‘ ডায়াবেটিক গাইড বুক” নামক পুস্তকটি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আহার্যের নানারকম নমুনা দেওয়া হয়েছে।

ডায়াবেটিসের খাদ্য

খাদ্য পরিকল্পনার সুবিধার জন্য সকল প্রকার খাদ্যবস্তুকে ৭ ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

১। দুধ

২। শাকসবজি

৩। ফল

৪। ভাত বা রুটি

৫। ডাল

৬। মাছ, মাংস

৭। তেল ও ঘি

বহুমূত্র রোগীদের আহার্য প্রস্তুতের সময় প্রত্যেক শ্রেণি থেকে খাদ্য নির্বাচন করতে হয়। প্রত্যেক শ্রেণির মধ্যে বিনিময় যোগ্য বিভিন্ন খাদ্যের পরিমাণ দেওয়া হলো। প্রত্যেকটি খাদ্যের উল্লিখিত পরিমাণ ১ বিনিময়ের সমান। এর যেকোন একটি নিয়ে খাদ্য প্রস্তুত করা যেতে পারে। কিন্তু এক শ্রেণির অন্তগর্ত কোন খাদ্যের পরিবর্তে অপর এক শ্রেণির থেকে কোন খাদ্য নির্বাচন করা যাবে না। শাকসবজি শ্রেণিকে আবার দুইভাগে ভাগ করা হয়েছে। যেগুলিতে খুব সামান্য পরিমানে শর্করা আছে এবং রোগী হিসাব না করেই আনুমানিক ১ কাপ ( কাঁচা ) পরিমাণে গ্রহণ করতে পারে। এগুলিকে ক শ্রেণিভুক্ত করা হয়েছে এবং যেগুলি আধা কাপ পরিমাণে গ্রহণ করলে ৭ গ্রাম শর্করা গ্রহণ করা হবে সেগুলিকে খ শ্রেণিভুক্ত করা হবে। এই আধাকাপ পরিমানের খ শ্রেণির শাকসবজি ১ বিনিময় তালিকার সমান। বিনিময় তালিকার সুবিধা এই যে প্রত্যেক দিন একই খাদ্য গ্রহণের এক ঘেয়েমি থেকে মুক্তি ও নিজের পছন্দমতো খাদ্য প্রস্তুতের স্বাধীনতা পাওয়া যায়।

আরো দেখুনঃ সকালের নাস্তায় রুটি খাওয়া কতটা স্বাস্থসম্মত?

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.