ফিচার

তেলাপোকা দূর করার সহজ উপায়

তেলাপোকা দূর করার উপায়

তেলাপোকা দেখলে প্রায় সবাই বিরক্ত হয়। তেলাপোকা শুধু যে বিরক্তির কারণ তাই নয়। তেলাপোকা বিভিন্ন ধরনের অসুখ ও ছড়ায়। তেলাপোকা বিষাক্ত জীবাণূ ছড়ায়। এই তেলাপোকা খুবই ক্ষতিকর একটা প্রাণী। তেলাপোকা ময়লা ঘেটে বেড়ায় সবসময়। তাই তেলাপোকা থালা বাসন বা খাবারে অসুখ ছড়ায়।

তেলাপোকা দেখতে নিরীহ মনে হলেও এই প্রাণীটি খুবই ক্ষতিকর। আমরা প্রায় সময়ই এই বিরক্তিকর তেলাপোকার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হয়ে থাকি। তাই আমাদের ঘর বাড়ি থেকে এই পোকা দূর করা উচিত। তেলাপোকা ময়লা আবর্জনা থেকে উঠে এসে আমাদের ঘরে ঘুরে বেড়ায়। তারা আমাদের খাবার দাবারের উপরে হেটে বেড়াতে থাকে। এই পোকার গায়ে ও পায়ে লেগে থাকা জীবাণূ খাবারের সংস্পর্শে এসে আমাদের শরীরের ক্ষতি করে।

তেলাপোকার অত্যাচ্যার থেকে মুক্তি পেতে আমরা অনেকেই বাজার থেকে বিভিন্ন স্প্রে কিনে এনে ব্যবহার করে থাকি। কিছুদিনের জন্য এর হাত থেকে মুক্তি পেলেও আবার ফিরে আসে। অর্থাৎ তেলাপোকা আমাদের পিছন ছাড়ে না। তেলাপোকা বাড়িতে দেখতে পেলে আমাদের সর্তক হয়ে যেতে হবে। তেলাপোকার বংশ ধবংস করার জন্য তৎপর হতে হবে।

বাড়ি থেকে যদি তেলাপোকা চিরতরে দূর করে চায় তাহলে কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করতে হবে। যেমনঃ

১। ঘরবাড়ি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা-

তেলাপোকা থেকে রক্ষা পাওয়ার প্রথম হাতিয়ার হচ্ছে ঘরবাড়ি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা। তেলাপোকা খাবার দাবার ও ময়লা স্থান খুব বেশি পছন্দ করে। তাই তারা সেখানেই বেশি বাসা বাধে। তাই নিয়মিত ঘরবাড়ি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখলে তেলাপোকা বাসা বাধতে পারে না।

২। সাবান পানি-

তেলাপোকার যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে বাজার থেকে বিভিন্ন স্প্রে ও ওষুধ কিনে আনা হয়। কিন্তু এসব স্প্রে ও ওষুধ সবসময় কাজ করে না। তাই গায়ে মাখার সাবান ও পানি মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরী করে নেওয়া যেতে পারে। ঘরের প্রতিটি কোণায় কোণায় এই মিশ্রণ স্প্রে করে দিলে তেলোপোকা ধবংস হয়ে যায়।

৩। চিনি ও বেকিং সোডা-

তেলাপোকা বেকিং সোডার গন্ধ একদমই সহ্য করতে পারে না। তাই বেকিং সোডা তেলাপোকা নিধনে কাজে লাগানো যেতে পারে। সমপরিমাণ বেকিং সোডা ও চিনি একসাথে মিশিয়ে বাড়ির সব স্থানে ছড়িয়ে দেওয়া যেতে পারে।

তেলাপোকা চিনির লোভে ছুটে আসবে কিন্তু এসে বেকিং সোডা মেশানো চিনি খেয়ে মরে যাবে। প্রতিদিন এই পদ্ধতি ব্যবহার না করে সপ্তাহে দুই দিন টানা তিন সপ্তাহ এই পদ্ধতি ব্যবহার করলেই তেলাপোকা দূর করা সম্ভব।

৪। তেজপাতার ব্যবহার-

তেজপাতার নানা রকমের গুণাবলি রয়েছে। তেজপাতা যে শুধু রান্নার কাজেই ব্যবহার করা হয় তা নয়, ঘর বাড়ি থেকে তেলাপোকা দূর করতেও তেজপাতা অনেক উপকার করে থাকে। তেজপাতার গন্ধ তেলাপোকা সহ্য করতে পারে না।

তেজপাতা গুড়া করে ঘর বাড়ির প্রতিটি কোণায় ছড়িয়ে দিতে হবে। সপ্তাহে অন্ততপক্ষে দুই তিনদিন তেজপাতা গুড়া করে ছড়িয়ে দিলে তেলাপোকার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

৫। গোলমরিচ, পেঁয়াজ ও রসুন-

গোলমরিচ, পেঁয়াজ ও রসুন দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে নিতে হবে। তাতে ১ লিটার পানি মেশাতে হবে। তারপর এই পানি ঘরের প্রতিটি কোণায় কোণায় ছিটিয়ে দিতে হবে। এই মিশ্রণের গন্ধে তেলাপোকা ঘর থেকে দূর হয়ে যায়।

। চুলের স্প্রে ব্যবহার-

তেলাপোকার উপর চুলের স্প্রে দিয়ে স্প্রে করে দিলে তেলাপোকা আর নড়তে পারে না। তেলাপোকা অনেক দূর্বল হয়ে যায়। তখন তেলাপোকা ধরে বাইরে ফেলে দেওয়া যেতে পারে বা মেরে ফেলা যেতে পারে।

৭। বোরিক পাউডার ব্যবহার-

বোরিক পাউডার এক ধরনের অ্যাসিটিক এসিড। যেকোন ধরনের পোকামাকড়ের উপদ্রব কমাতে বোরিক পাউডার খুব ভালো কাজ করে। ১ চা চামচ বোরিক পাউডার, ২ চা চামচ ময়দা বা আটা ও ১ চা চামচ কোকো পাউডার একসাথে মিশিয়ে ঘর-বাড়ির কোণায় কোণায় ছড়িয়ে দিতে হবে। তেলাপোকা আটা, ময়দা ও কোকো পাউডার ঘ্রাণে আকৃষ্ট হয়ে আসবে। কিন্তু বোরিক পাউডার খেয়ে মারা যাবে। সপ্তাহে তিন বা চার দিন এটা দেওয়া যেতে পারে। দুই সপ্তাহ দিলেই ভালো ফল পাওয়া যায়।

৮। শসা-

একটি অ্যালুমিনিয়ামের ক্যানে শসার কিছু খোসা নিতে হবে। তারপর ক্যানটি তেলাপোকা আসার স্থানে রেখে দিতে হবে। শসার খোসা অ্যালুমিনিয়ামের সাথে বিক্রিয়া করে দূর্গন্ধ সৃষ্টি করে। ফলে তেলাপোকার মৃত্যু ঘটে।

৯। পেট্রোলিয়াম জেলি-

একটি জারে পেট্রোলিয়াম জেলি, আম, কলা বা আপেলের খোসা রেখে দিতে হবে। ঘরের যে জায়গা দিয়ে তেলাপোকা ঢুকে সেখানে জারটি রেখে দিতে হবে। ফলের খোসার গন্ধ তেলাপোকাকে ঘরে ঢুকতে আকৃষ্ট করবে কিন্তু পেট্রোলিয়াম জেলি তেলাপোকাকে জারের ভিতরে ঢুকতে বাধা দিবে। তেলাপোকা যখন জারের চারপাশে জমা হবে তখন সাবান পানি ও চুলের স্প্রে করে দিলে তেলাপোকা নিমিষে চলে যাবে।

০। অ্যামোনিয়ার মিশ্রণ-

পানি ও অ্যামোনিয়ার মিশ্রণ তেলাপোকা দূর করতে খুব ভালো কাজ করে। এক বালতি পানিতে ২ কাপ অ্যামোনিয়া গুলিয়ে নিতে হবে। সেই পানি দিয়ে রান্নাঘর ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। অ্যামোনিয়ার গন্ধে তেলাপোকা ঘরে ঢুকতে পারবে না।

১১। আঠার ব্যবহার-

আঠার ব্যবহার পদ্ধতিটি খুব সহজ ও কার্যকর। উন্নতমানের আঠা যেমনঃ ডাক টেপ ঘরের বিভিন্ন স্থানে আঠালো অংশ উপরিভাগে দিয়ে রেখে দিতে হবে। এর উপর দিয়ে চলাচল করলে তেলাপোকা আটকে যাবে।

২। অর্ধেক পানি ভর্তি কাচের শিশি-

ঘরের কোণা দেখে কাচের জারে অর্ধেক পানি ভরে রেখে দিতে হবে। তেলাপোকা কাচের শিশি খালি ভেবে ভিতরে ঢুকতে গেলে পানিতে আটকা পড়ে যাবে। তেলাপোকা আর উড়তে পারবে না।

১৩। লিস্টারিন, পানি ও প্লেট ধোয়ার তরল সাবান-

এই তিনটি উপাদান পানিতে মিশিয়ে ঘরের চারিদিকে স্প্রে করে নিতে হবে। তাহলে তেলাপোকা দূর হয়ে যাবে।

তেলাপোকার উপদ্রব সহ্য করতে হয়না এমন মানুষ কোথাও খুজে পাওয়া যায় না। বাড়ি ঘর ময়লা থাকলে তেলাপোকা বেশি বাসা বাধে। তাই বাড়ি ঘর সবসময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। মানুষকে সচেতন হতে হবে।

আরো পড়ুনঃ বেকিং এর কিছু সঠিক নিয়ম

রাতে কোন খাবার খেলে ওজন বাড়বে না?

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.