খাদ্য ও স্বাস্থ্যকথাখাদ্য টিপসপুষ্টি পরামর্শস্বাস্থ্য টিপস

পাথরকুচি পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা

পাথরকুচি পাতার উপকারিতা

পাথরকুচি পাতার গাছ প্রায় অনেক বাড়িতেই দেখতে পাওয়া যায়। এটি যে শুধু সৌন্দর্যবর্ধন করে এমনটাই না, এটি ঔষধি একটি উদ্ভিদ ও বটে। প্রাচীনকাল থেকেই এটির ঔষধি গুণ সকলের জানা। পাথরকুচি গাছ দেড় থেকে দুই ফুট উচু হয়ে থাকে। এর পাতা মাংসল ও মসৃণ হয়। দেখতে অনেকটা ডিমের মতো। পাতার চারপাশে ছোট ছোট গোল খাজ থাকে। এই পাতা মাটিতে ফেলে রাখলেই খুব অনায়াসে গাছ হয়ে যায়। ভেজা ও স্যাতস্যাতে মাটিতে এই গাছ খুব দ্রুত জন্মে। তরমুজের খোসার উপকারিতা

পাথরকুচি পাতা যেভাবে খাওয়া হয়ঃ

১। শরীরের কোন অংশ জ্বালাপোড়া করলে প্রথমে পাথরকুচি পাতা নিয়ে গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর এই পাতা বেটে নিয়মিত খেতে হবে। তাহলে শরীরের জ্বালাপোড়া খুব সহজেই দূর হয়ে যাবে।

২। সর্দিজনিত কোন সমস্যায় আক্রান্ত হলে পাথরকুচি পাতার রস বেটে তার সাথে মধু দিয়ে নিয়মিত খেলে খুব উপকার পাওয়া যায়।

৩। কিডনির সমস্যা থাকলে দিনে দুইবার পাথরকুচি পাতার রস খেলে ধীরে ধীরে কিডনির পাথর অপসারণ হয়ে যায়।

৪। জন্ডিস প্রতিরোধেও পাথরকুচির রস খুব ভালো কাজ করে। নিয়মিত পাথরকুচি পাতার রস খেলে জন্ডিস রোগ খুব অল্প সময়েই ভালো হয়ে যায়।

৫। গলগন্ড রোগ থেকে মুক্তি দেয় পাথরকুচি পাতার রস। দিনে দুইবেলা পাথরকুচি পাতার রস খেলে গলগন্ড থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

গরম দুধে খেজুর মিশিয়ে খাওয়ার উপকারিতা

পাথরকুচি পাতার উপকারিতাঃ

পাথরকুচি পাতার উপকারিতা রয়েছে নানবিধ। এই পাতার বলতে গেলে তেমন কোন অপকারিতাই নেই। চলুন দেখে নেওয়া যাক পাথরকুচি পাতার উপকারিতাসমূহ।

১। কিডনীর রোগ প্রতিরোধেঃ কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত হলে নিয়মিত পাথরকুচি পাতার রস সেবন করা উচিত। তাহলে খুব সহজেই এই ব্যধি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

২। ঠান্ডা প্রতিরোধেঃ যদি খুব বেশি ঠান্ডার সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে থাকেন তাহলে আপনার জন্য একটা সুখবর আছে। পাথরকুচি পাতার রস খেলে দ্রুতই ঠান্ডার সমস্যার সমাধান হয়ে যায়।

৩।ফোড়া প্রতিরোধেঃ যেকোন ধরনের ফোড়ার ব্যথা নিরাময়ে পাথরকুচি পাতার রস খেলে খুব বেশি উপকার পাওয়া যায়। ফোড়া হলে কোন চিন্তা না করে পাথরকুচি পাতার রস খাওয়া উচিত।

৪। মৃগীর সমস্যা সমাধানেঃ মৃগী নামক রোগের নাম অনেকেই শুনে থাকবেন। যখন কারো মৃগী দেখা দেয় তখন যদি তার মুখে দুইটা পাথরকুচি পাতার রস খাইয়ে দেওয়া যায় তাহলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

৫। পিত্তথলীর সমস্যায়ঃ পিত্তথলীতে যদি কোন সমস্যা দেখা যায় তাহলে নিয়মিত পাথরকুচি পাতার রস খেলে উপকার পাওয়া যায়।

৬। পাকস্থলীর সমস্যায়ঃ পাকস্থলীর সমস্যায় পাথরকুচি পাতা ব্যবহার করা হয়। পাকস্থলীতে কোন সমস্যা দেখা দিলে পাথরকুচি পাতার রস খেলে সমস্যার সমাধান হয়ে যায়।

৭। শরীরের কাটা অংশের ব্যথা প্রতিরোধেঃ শরীরের কোন অংশে কেটে গেলে পাথরকুচি পাতার রস ব্যবহার করলে ব্যথা থেকে দ্রুত উপশম পাওয়া যায়।

৮। ডায়াবেটিক প্রশমনেঃ ডায়াবেটিকে আক্রান্ত হলে পাথরকুচি পাতার রস খেলে উপকার পাওয়া যায়।

এছাড়াও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে, ত্বক উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে, অর্শ্ব বা পাইলস প্রতিরোধে, যেকোন পানিবাহিত অসুখ প্রতিরোধে এবং খোস পাচড়া থেকে মুক্তি পেতে পাথরকুচি পাতার রস খুব ভালো উপকার করে থাকে।

পাথরকুচি পাতার অপকারিতাঃ

পাথরকুচি পাতা উপকারিতা খুব বেশি। এর অপকারিতা নেই বললেই চলে। তবে কিছু অপকারিতা আছে যেগুলো সম্পর্কে জানা উচিত। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১। অতিরিক্ত পাথরকুচি পাতার রস খেলে মুখের স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।

২। অতিরিক্ত পাথরকুচি পাতার রস খেলে কলেরা বা ডায়ারিয়া হতে পারে।

৩। অতিরিক্ত পাথরকুচি পাতার রস খেলে পিত্তথলিতে সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৪। অতিরিক্ত পাথরকুচি পাতার রস খেলে ক্ষুধামন্দ্যা হতে পারে।

তাই যেকোন কিছু খুব বেশি পরিমাণে না খেয়ে অল্প পরিমাণেই খাওয়া উচিত।

আরো পড়ুনঃ কিউই ফলের উপকারিতা

খালি পেটে ডাবের পানি খাওয়ার উপকারিতা

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.