ত্বকের যত্নরূপচর্চালাইফস্টাইল

মধুতে হোক রুপচর্চা

মধু দিয়ে রূপচর্চা

প্রাচিনকাল থেকেই বাংলাতে মধু বেশ জনপ্রিয়। পৃথিবীজুড়েই মধুর ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে আয়ুর্বেদমতে, যেকোনো একটি ফুলের মধুর চেয়ে বিভিন্ন রকমের ফুলের মধুর সমন্বয় বেশি কার্যকর। কারণ, সেই মধুতে উপকার পাওয়া যায় নানা ফুলের নানা উপকরণ থেকে। শতফুলি মধু (কমপক্ষে ১০০টি ফুলের মধুর সমন্বয়) যেমন রূপচর্চার জন্য অতুলনীয়, তেমনি এই মধু পুষ্টিগুণেও অনন্য। ভেতর থেকে ত্বককে লাবণ্য করে তুলতে প্রতিদিন মধু খাওয়া যেতে পারে। ১ গ্লাস গরম দুধে ২ চা-চামচ মধু আর ৩-৪ টি জাফরান গুলে খেতে পারেন। এতে তিন মাসের মধ্যে ত্বক হয়ে ওঠে উজ্জ্বল। এ ছাড়া ১ চা-চামচ মধুর সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে নিতে পারেন সমপরিমাণ। কোনো পানি না মিশিয়ে খেয়ে নিন এই পেস্ট প্রতিদিন সকালে, অবশ্যই ভরপেট নাশতার পরে। এটিও স্বাস্থ্যের পক্ষ্যে খুব উপকারী। তবে প্রথমটিই বেশি কার্যকরী হয়ে থাকে।

মধু

তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে মধু

ত্বক তৈলাক্ত হলেই যে তা আর্দ্র হবে, এমনটা কিন্তু সবসময় হয় না। তৈলাক্ত ত্বকও আর্দ্রতার অভাবে নিষ্প্রাণ ,নিস্তেজ হয়ে পড়তে পারে। তৈলাক্ত ত্বকে তুলসী পাতা আর মধু প্রয়োগ করা যেতে পারে। ১ কাপ তুলসী পাতা নিয়ে রস বের করতে হবে। মোটামুটি ১ টেবিল চামচ পরিমাণ রস নিতে হবে। রস ছেঁকে নিতে হবে। রস ছেঁকে নিয়ে পাতার বাকি অংশটুকু ফেলে দেওয়া যাবে না। তুলার সাহায্যে রসটুকু মুখে লাগিয়ে নিতে হবে টোনারের মতো। ৫-৭ মিনিট পর রস শুকিয়ে এলে এবার পাতার সেই বাকি অংশের সঙ্গে মধু মিশিয়ে নিতে হবে ১ চা-চামচ পরিমাণ। এই মিশ্রণই হয়ে যাবে একটি ফেসপ্যাক। ফেসপ্যাকটি মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলতে হবে। সপ্তাহে ১ দিন এভাবে মধু দিয়ে রূপচর্চা করা যেতে পারে। তবে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেশি হলে সপ্তাহে ২-৩ দিনও ব্যবহার করা যেতে পারে।

মধু

মিশ্র ত্বকের জন্য মধু

ত্বক মিশ্র প্রকৃতির হলে একেক মৌসুমে একেক রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে। তবে সঠিক নিয়মে ভালো মানের মধু ত্বকে প্রয়োগ করলে তা স্বাভাবিক ত্বকের মতোই হয়ে উঠতে পারে। মিশ্র ত্বকের জন্য দুইভাবে কাজে লাগতে পারে মধু। সপ্তাহে ১ দিন করে ব্যবহার করা যেতে পারে নিচের যেকোনো একটি উপায়ে। ১ কাপ পুদিনা পাতা (ডাল নয়) ধুয়ে চটকে নিয়ে এই রস তুলার সাহায্যে মুখের ত্বকে লাগিয়ে ৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। এবার ১ চা-চামচ মধুর সঙ্গে আধা চা-চামচ গোলাপজল মিশিয়ে মিশ্রণটি তুলার সাহায্যে একইভাবে মুখে লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। পুদিনা পাতা নিন ১ টেবিল চামচ পাতা পিষে নিয়ে এর সঙ্গে মেশান ১ টেবিল চামচ মুলতানি মাটি এবং ১ চা-চামচ মধু। কোনো পানি মেশাবেন না। মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর মুখ ধুয়ে ফেলুন।

শুষ্ক ত্বকেও চাই মধু

শুষ্ক ত্বকেও ২টি আলাদা পদ্ধতিতে মধু প্রয়োগ করা যেতে পারে। চন্দনগুঁড়া নিতে হবে ১ চা-চামচ। গরুর দুধ গরম করে এর সঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে। চন্দন ভালোভাবে মিশে যেতে যে পরিমাণ দুধের প্রয়োজন হবে, ততটাই নিতে হবে। চন্দন ভালোভাবে মিশে যাওয়ার পর এই মিশ্রণে কয়েক ফোঁটা মধু মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর ত্বকে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। সপ্তাহে ২ দিন এভাবে ব্যবহার করতে পারেন মধুর এই ফেইসপ্যাক। চাইলে চন্দনগুঁড়ার পরিবর্তে সামান্য একটু চন্দন কাঠ দিয়েও একই নিয়মে প্যাকটি তৈরি করা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে দুধে চন্দন ভিজিয়ে রাখতে হবে কিছুসময়য়। এরপর শিল–পাটায় গুড়া করে নিতে হবে। এই প্যাক ত্বকে উজ্জ্বলতা আনে, কালচে ছোপ দূর করতে সাহায্য করে এবং ত্বকে বলিরেখা পড়তে বাধা দেয়। কাঁচা হলুদের রস ভালোভাবে ফুটিয়ে রস ঘন হয়ে এলে নামিয়ে নিয়ে এবার ১ চা-চামচ রস নিয়ে এর সঙ্গে মিশিয়ে নিন ১টি ডিমের কুসুম ও আধা চা-চামচ মধু। মিশ্রণটি সপ্তাহে ১ বার মুখে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিটের জন্য। ত্বক অতিরিক্ত শুষ্ক হলে, ঠোঁটের আশপাশের বা নাকের চামড়া শুষ্ক হলে সপ্তাহে ২-৩ দিন প্রয়োগ করা যেতে পারে । ভালোভাবে জ্বাল দেওয়া হলুদের রস ঠান্ডা করে কাচের মুখবন্ধ বয়ামে পুরে ফ্রিজে পনেরোর জন্য রেখে দিতে পারেন। ত্বককে আর্দ্র রাখতে এই প্যাক দারুণ কাজ করে।

আরো পড়ুনঃ

গাজরে হোক রুপচর্চা

চুলকে স্বাস্থ্যবান রাখতে ভিটামিন

পানি দিয়ে রূপচর্চা

ভাতের মাড় দিয়ে রূপচর্চা

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.