ত্বকের যত্নরূপচর্চা

ঘরোয়াভাবে কিভাবে মুখের জেল্লা ফিরিয়ে আনা যায়?

মুখের জেল্লা ফিরিয়ে আনতে করণীয়

বাইরের দূষণ, ধুলাবালি, ঘাম, আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি ইত্যাদি থেকে মুখের ত্বককে বাচানো খুব বেশি কঠিন। এসবের মাধ্যমে ত্বকের জেল্লা হারিয়ে যায়। ত্বক অনেক বেশি নির্জীব, রুক্ষ ও শুষ্ক হয়ে যায়। তখন নিজেকেই দেখতে খারাপ লাগে।

ত্বকের জেল্লা বাড়াতে একেক জন একেক জিনিস ব্যবহার করে থাকে। মৌসুমি ফল ও শাকসবজি নিয়মিত খেলে মুখের জেল্লা বৃদ্ধি পায়। তাই আমাদের প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় মৌসুমি ফলমূল ও শাকসবজি রাখা উচিত।

ত্বক প্রয়োজনীয় পুষ্টি পেলে উজ্জ্বল হয়ে উঠে। ত্বকের যত্ন নিলে ত্বক খুব বেশি সুন্দর হয়ে যায়। ঘরোয়া উপায়ে কিছু উপাদান দিয়ে ত্বকের যত্ন নিলেই ত্বক উজ্জ্বল ও লাবণ্যময় হয়ে উঠে।

। পাকা কলা, অ্যালোভেরা ও আনারের মিশ্রণঃ

ফল ও ফলের রস ত্বকের জেল্লা বৃদ্ধি করে। অ্যালোভেরা জেল ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে।

পাকা কলা ভালো মতো চটকে নিতে হবে। অ্যালোভেরা থেকে জেল বের করে নিতে হবে। আনার চিপে রস বের করে নিতে হবে। তারপর চটকানো কলার সাথে আনারের রস ও অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে পেস্ট করে নিতে হবে। তারপর হালকা গরম পানিতে সুতি কাপড় ভিজিয়ে মুখ মুছে নিতে হবে। তারপর মিশ্রণটি ভারী করে লাগিয়ে নিতে হবে। মিশ্রণটি মুখে মেখে আধা ঘণ্টা থেকে ৪০ মিনিট রেখে দিতে হবে। তারপর ঠান্ডা পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিলে মুখে জেল্লা বৃদ্ধি পাবে।

২। চন্দন গুড়া, ডাবের পানি ও মধুর মিশ্রণঃ

ডাবের পানি শরীরের জন্য খুবই উপকারী। ডাবের পানি ত্বককে উজ্জ্বল ও প্রাণবন্ত রাখতেও সাহায্য করে। চন্দন মুখের রোদে পোড়া দাগ দূর করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি মধুর ও নানান গুণাবলি রয়েছে।

চন্দন গুড়া পরিমাণ মতো নিয়ে ডাবের পানি দিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। এতে কয়েক ফোটা মধু মিশিয়ে নিতে হবে। এই মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে ৩০-৪০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। টানা সাতদিন দুইবেলা করে লাগালে মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়।

৩। হলুদ গুড়া, শসার রস ও ভিটামিন ই ক্যাপসুলের মিশ্রণঃ

হলুদ গুড়া ত্বকের সব ধরনের সমস্যা সমাধান করতে সাহায্য করে। হলুদ ও শসার রস ত্বকের অমসৃণ ভাব দূর করে। ভিটামিন ই ক্যাপসুল ত্বককে এক্সোফোলিয়েট করে।

শসা ব্লেন্ড করে চিপে রস বের করে নিতে হবে। তার সাথে পরিমাণ মতো হলুদ গুঁড়া ও একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুক মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। এই মিশ্রণটি প্রতিদিন গোসলের সময়ে মোটা করে লাগিয়ে নিতে হবে। শুকিয়ে গেলে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। তাহলে ত্বকের জেল্লা বৃদ্ধি পাবে।

। চালের গুড়া, মেহেদী গুড়া, ঘি ও কাঁচা দুধের মিশ্রণঃ

মেহেদী পাতা ত্বকের ক্ষতি পূরণ করে। ঘি ও চালের গুড়া ত্বককে এক্সোফোলিয়েট করে।

মেহেদী পাতা বেটে নিতে হবে বা মেহেদী গুড়া নিতে হবে। তার সাথে চালের গুড়া ও কাঁচা দুধ মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। এতে কয়েক ফোটা ঘি নিতে হবে। এই মিশ্রণটি দশ মিনিট ফ্রিজে রেখে দিতে হবে। দশ মিনিট পর বের করে মুখে লাগাতে হবে। শুকিয়ে গেলে পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর মুখে একটু বরফ কুচি ঘসে নেওয়া যেতে পারে।

৫। ডিমের সাদা অংশ, মূলতানি মাটি ও লেবুর রসঃ

ডিমের সাদা অংশ আলাদা করে নিতে হবে। তারপর ফেটিয়ে নিতে হবে ভালো মতো। এবার এতে মূলতানি মাটি ও লেবুর রস মেশাতে হবে। এই মিশ্রণটি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে মুখে লাগিয়ে নিতে হবে। শুকিয়ে গেলে সামান্য লেবুর রস হাতে নিয়ে ত্বকে ম্যাসাজ করে ধুয়ে নিতে হবে। তারপর খানিকটা গোলাপ জল দিয়ে নিতে হবে। এসব ব্যবহারে মুখের জেল্লা ফিরে আসে।

আরো পড়ুনঃ

মধুতে রূপচর্চা

ব্রণ হওয়ার জন্য দায়ী অভ্যাস

তৈলাক্ত ত্বকের উপকারী ফেসপ্যাক

Related Articles

Back to top button