খাদ্য টিপস

রাতে কোন খাবার খেলে ওজন বাড়বে না?

রাতে যেসব খাবার খেলে ওজন বাড়বে না।

প্রায় প্রতিটি মানুষেরই দিনের থেকে রাতে বেশি খেতে ইচ্ছা করে। গভীর রাতে স্ন্যাকস জাতীয় খাবার বেশি খেতে ইচ্ছা করে। রাত যত বাড়তে থাকে ততই যেন এটা ওটা খাবার প্রতি মন জাগতে থাকে। একে লেট নাইট ক্রেভিং বলা হয়। এর কারণ বের করা কঠিন। এসময়ে ক্ষুধার চাইতেও যেন মানসিক তৃপ্তি বেশি কাজ করে। কিন্তু অপরদিকে আরেকটি ভয় আছে রাতে খাবার খেলে ওজন বেড়ে যায়। কারণ রাতে যেটুকু খাবার খাওয়া হয় সেটুকুই গায়ে লেগে যায়। সেটুকুই শরীরে জমে যায়। ঐ ক্যালরি আর খরচ হয়না। বিশেষ করে গভীর রাতে কোন খাবার খেলে ওজন বেড়েই যাবে। একটা কথা আছে, লেট নাইট ক্রেভিং মিটানোর জন্য যেসব খাবার খাওয়া হয় সেগুলো কিছুটা ভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেগুলো খেলে ওজন বাড়বে না আবার পেটের শান্তি মিলবে।

। বাটার আলমন্ড স্যান্ডউইচ

স্যান্ডউইচ খেলে খুব দ্রুতই ওজন বেড়ে যায়। স্যান্ডউইচ যা দিয়ে বানানো হয় সেগুলো মূলত উচ্চ ক্যালরি প্রোটিন ও ফ্যাট সমৃদ্ধ হয়ে থাকে। তাই রাতে খেতে হবে এমন স্যান্ডউইচ যা খাই খাই ভাবটাও কমাবে আবার অপরদিকে ক্ষিধেও লাগবে না। সেজন্য কলার সাথে আলমন্ড বাটার মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে তা দুই টুকরা পাউরুটির মাঝে দিয়ে দুইটি শসা ও লেটুস পাতা দিয়ে বানিয়ে নিতে পারেন হেলদি স্যান্ডউইচ।

২। মুচমুচে লবণ ছাড়া খাবার-

লবণ ছাড়া চিপস

রাতে জেগে থাকলে হঠাত করেই মাঝে মাঝে কুড়মুড়ে কোন খাবার খেতে মন চাই। তখন চিপসের পযাকেট নিয়ে বসা উচিত নয়। প্যাকেটের চিপসে প্রচুর পরিমাণে লবণ থাকে। এতে ওজন বৃদ্ধি পেতে পারে। তাই নাইট ক্রেভিং এ লবণ ছাড়া বেক করা চিপস খেতে পারেন।

৩। লো- কার্ব পপকর্ণ-

পপকর্ণ অনেকেরই প্রিয় খাবার কিন্তু ওজন বাড়ার ভয়তে পপকর্ণ খেতে চায় না। একটু ভিন্ন উপায়ে তেল, মশলা ছাড়া পপকর্ণ তৈরী করা যায়। বাজারে বর্তমানে লো-কার্ব পপকর্ণ পাওয়া যায়। আবার এই ধরনের পপকর্ণ বাড়িতেও তৈরী করে নেওয়া যায়। আবার কিনেও আনা যায়। যখন রাতে ক্ষুধা লাগলো তখন খেতে পারবেন এই পপকর্ণ।

৪। আইসস্ক্রিমের বদলে নাইসস্ক্রিম-

গভীর রাতে আইসক্রিম খাওয়ার মন হয় অনেক সময়। এটা শুধু যে লেইট নাইট ক্রেভিং হলেই হয় এমনটা নয়, মন খারাপ বা ভালো থাকলেও হতে পারে। নাইসক্রিম খাওয়া যেতে পারে এই গভীর রাতে। এটা ঠিক আইসক্রিমের স্বাদই দিবে। কিন্তু এতে কোন ওজন বাড়বে না। বরফ করা স্ট্রবেরি, ভ্যানিলা নির্যাস ও কিছুটা প্রাকৃতিক মিষ্টি এবং ফ্যাট ছাড়া দুধ দিয়ে তৈরী করতে পারবেন নাইসক্রিম।

৫। ডার্ক চকোলেটের স্ন্যাকস-

শুকনো কোন ফল খেতে খেতে পানসে লাগলে এর উপরে ছড়িয়ে দিতে পারেন কিছু ডার্ক চকোলেট। আর কিছু ফল ছড়িয়ে দিতে পারেন। রাতে আপেল খেতে পারেন। প্রতিদিন একটা করে আপেল খেলে ডাক্তারের কাছে যাওয়া লাগবে না। সেই আপেলটি আপনি মধ্যরাতে খেতে পারেন। আপেল খাওয়ার পর যদি আপনি আর কিছু না খান তাহলে আর দাঁত ব্রাশ করার কোন ঝামেলা থাকে না।

৬। শুকনো ফল খাওয়া যেতে পারে-

শুকনো ফলে চিনির পরিমাণ অনেক কম থাকে। এই খাবারটি নাইট ক্রেভিং এ ভালো কাজ করে। পাতলা করে আপেল, বেরি, কিসমিস বা পিচ ফল খাওয়া যেতে পারে। আবার কিছু ড্রাই ফ্রুট ও খেতে পারেন। বাজারে সব ধরনের ড্রাই ফ্রুট একসাথে পাওয়া যায়। সেগুলো রাতে খেতে পারেন। তাহলে ক্যালরি বাড়ার কোন ভয় থাকবে না।

আরো পড়ুনঃ

যখন তখন ঘুম আসার কারণ

চকলেট খাচ্ছেন? না কি খাচ্ছেন না? জানুন চকলেটের উপকারিতা ও অপকারিতা

Related Articles

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.