অফিস লাইফঝটপট রান্নালাইফস্টাইল

আধুনিক রান্নাঘরের সঙ্গী

কিচেন অ্যাপ্লায়েন্স

আমাদের প্রতিদিনের খাবার বা পেটপুজোর জোগাড় করা হয় রান্নাঘরে। খাবার তৈরীর জন্য বিভিন্ন ধরনের আনুষাংগিক জিনিসপত্র কিনতে হয়। সেসব জিনিসপত্র একটু দেখে শুনে বেছে কিনতে হয়।

নতুন সংসারে রান্নাঘরের টুকিটাকি থেকে বড় অনেক ধরনের জিনিসপত্র কিনতে হয়। নতুন সংসারে চাই নতুনত্ব। ঘরের অন্দর থেকে রান্নাঘর সব জায়গাতেই নতুনত্ব থাকতে হবে। বর্তমানে মানুষের জীবন অনেক বেশি ব্যস্তময়। এই ব্যস্তময় জীবনে যতটুকু সময় পাওয়া যায় তাই দিয়ে ঘরের কাজ করতে হয়। ঘরের কাজের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে রান্না। রান্নাটা আবার হওয়া চাই সময়ের মধ্যে ঝটপট করে। এসব কাজ এখন অনেকটাই সহজ হয়ে গেছে ইলেক্ট্রনিক্স কিছু জিনিসপত্রের কল্যাণে।

আপনার ঘরে কেমন বিছানার চাদর মানানসই

এখন আমরা এসব কিচেন অ্যাপ্লায়েন্সের ব্যাপারে জানবোঃ

১। রাইস কুকারঃ অল্প সময়ে ভাত রান্না করার জন্য রয়েছে রাইস কুকার। শুধু ভাত নয় রাইস কুকারে পোলাও, বিরিয়ানী, খিচুড়ি , তেহারি সবই রান্না করা যায়। রাইস কুকারে পরিমাণ মতো সব উপকরণ মিশিয়ে দিয়ে সুইচ দিয়ে দিলেই কাজ শেষ। রান্না হয়ে গেলে কুকার আপনাআপনিই বন্ধ হয়ে যাবে। তাই রাইস কুকারে রান্না করার কোন ঝামেলা নেই। খাবার পুড়ে যাবার কোন সম্ভাবনা থাকে না। রাইস কুকার জীবনকে এভাবেই সহজ করে দেয়।

গরমে স্বস্তিদায়ক হবে যে রঙয়ের পোশাক

২। প্রেসার কুকারঃ বাসায় হঠাত করেই অতিথির আগমন ঘটলে তোড়জোড় লেগে যায় রান্নার। এই আয়োজন করতে যেয়ে যাতে গৃহিণীর কোন কষ্ট না হয় সেজন্য আছে প্রেসার কুকার। প্রেসার কুকার অতিরিক্ত চাপ ও তাপ প্রয়োগ করে রান্না করে খুব দ্রুত। প্রেসার কুকারের নিচের অংশ অ্যালুমিনিয়াম দ্বারা তৈরী করা হয়। এই কুকারে সাধারণত গরুর মাংস ও খাসির মাংস রান্না করা হয়। প্রেসার কুকারে রান্না করার সময় সতর্কতা এবং যেসব খাবার প্রেসার কুকারে রান্না করা উচিত নয়

রান্নাঘরের দূর্গন্ধ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

৩। ব্লেন্ডার মেশিনঃ গরমের সময়ে আরাম দেয় ফলের শরবত। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে গরমের সময়ে এক গ্লাস জ্যুস হলে প্রাণ ঠান্ডা হয়ে যায়। কিন্তু হাতে জ্যুস বানাতে গেলে বেশ অনেকটা সময় লেগে যায়। তাই ব্লেন্ডারের উপর ভরসা করতে হয়। আবার ব্লেন্ডার দিয়ে মশলাও বাটা যায় এক নিমিষেই কোন খাটুনি ছাড়া।

ইনডোর প্ল্যান্টের যত্ন

৪। মাইক্রোওয়েভ ওভেনঃ ওভেন ছাড়া যেন বর্তমানে রান্নাঘর ভাবাই মুশকিল। ঠান্ডা খাবার গরম করতে যেমন ওভেনের প্রয়োজন তেমনি ওভেনে রান্না ও করা যায়। এতে শ্রম এবং সময় বেঁচে যায়। অতি ব্যস্ততম এই সময়ের জন্য মাইক্রোওয়েভ ওভেন খুবই প্রয়োজনীয় একটি জিনিস।

রান্নাঘর কিভাবে জীবাণুমুক্ত রাখবেন?

৫। স্যান্ডউইচ মেকার এবং টোস্টারঃ স্যান্ডউইচ মেকার ও টোস্টার দিয়ে অল্প সময়ে খুব সহজে যেকোন রেসিপি দেখে নাস্তা তৈরী করা যায়। অফিসে যাওয়ার আগে চটজলদি যেকোন ধরনের নাস্তা বানিয়ে নেওয়া যায়।

আধুনিক কালে যেহেতু মানুষ বেশি ব্যস্ত এবং নানা জায়গায় যেতে হয় তাদের তাইজন্য এসব কিচেন অ্যাপ্লায়েন্সগুলো খুব সাহায্য করে থাকে।

আরো পড়ুনঃ সুখী সম্পর্ক পেতে যা করতে হবে

এক দিনে কত কাপ কফি খাওয়া স্বাস্থ্যকর?

যেসব খাবার ফ্রিজে রাখা উচিত নয়

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
error: Content is protected !!

Adblock Detected

Please turn off your Adblocker.